করোনা বাংলাদেশে বড় আকারে আলোচনায় আসে যখন চীনের উহানে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা আটকে পড়েন৷ তখন তাদের ফিরিয়ে আনার দাবি ওঠে৷ আর ফিরিয়ে আনাও হয়৷ গত ১ ফেব্রুয়ারি চীনের উহান সিটি থেকে বিশেষ বিমানে করে ৩১২ জন বাংলাদেশি নাগরিককে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়৷ তাদের ১৪ দিন রাখা হয় আশকোনা হজ ক্যাম্পে৷ তাদের কেউই করোনায় অক্রান্ত ছিলেন না৷ফলে প্রত্যেকেই ফিরে গেছেন বাড়িতে৷

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের স্ক্রিনিং শুরু হয় ২১ জানুয়ারি ৷ আর চীনে প্রথম করোনা শনাক্ত হয় ৩১ ডিসেম্বর৷

স্ক্রিনিংয়ের শুরুকে শুধু চীন থেকে আসা যাত্রীদেরই এর আওতায় নেয়া হয়৷ পরে সব যাত্রীকেও নেয়া হয় এর আওতায়৷ এখন সব বিমানবন্দর এবং স্থল বন্দরেই স্ক্রিনিং করা হচ্ছে বলে সরকারের দাবি৷ তবে বাস্তবে তার প্রমাণ মেলে না৷ কারণ, বিদেশ থেকে আসা কেউ কেউ স্ক্রিনিং ছাড়াই দেশে ঢুকে যাচ্ছেন৷ এলাকায় গিয়ে ঘুরছেন৷ স্থানীয় লোকজন আবার সেই কথা জেনে পুলিশে খবর দিচ্ছেন৷